বাংলাদেশের বৃহত্তম শিক্ষামূলক কমিউনিটিতে আপনাকে স্বাগতম!

ভোগে নয়, ত্যাগেই প্রকৃত সুখ/মনুষ্যত্বের বিকাশ ভাবসম্প্রসারন


যথাথ মনুষ্যত্ববােধ সম্পন্ন মানুষের পরিচয় তার ভােগ-লালসার মাধ্যমে প্রকাশ পায় না, পরের জন্য ত্যাগের মাধ্যমেই মানুষের মহত্ত্ব ফুটে ওঠে। মানুষের পরিচয় প্রকাশ পায় তার গুণাবলির মাধ্যমে। মানুষের কাজের মধ্যে যেসব কাজ মানবিক গুণাবলির সঙ্গে সম্পর্কিত সেগুলাের ভিতর দিয়েই মানুষকে চেনা যায়। পরের জন্য স্বার্থ ত্যাগ করার মধ্যে সে গুণের শ্রেষ্ঠ প্রকাশ। ঘটে।সংসারে যারা ভােগ-লালসায় নিমগ্ন থাকে তারা স্বার্থপর। তারা পরের কথা ভাবে না। পরের দুঃখে তাদের হৃদয় সহানুভূতিশীল হয়ে ওঠে না। তাদের অর্জিত সম্পদ যখন নিজের কাজে ব্যয়িত হয় তখন তাকে স্বার্থপর ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না। এ মানুষ সমাজে প্রশংসা পায় না। তারা স্বার্থান্ধ। তারা সংকীর্ণচিত্ত। তাদের দিয়ে সমাজের কোন উপকার হয় না বলে তারা মর্যাদাহীন। তাদের চরিত্রে আছে মনুষ্যত্বের অভাব। অপরদিকে শ্রেষ্ঠ মনুষ্য চরিত্রের পরিচয় পাওয়া যায় তার ত্যাগের মধ্যে। নিজের স্বার্থ বড় বলে বিবেচনা না করে পরের উপকারের জন্য সর্বশক্তি নিয়ােগ করে মানুষ যথার্থ মহানুভবতার পরিচয় দেয়। পরের কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ। করতে পারলেই মানুষের মহত্ত্বের পরিচয় পাওয়া যায়। যার মধ্যে মনুষ্যত্ব গুণ বিরাজ করে সে নিজের স্বার্থের দিকে দৃষ্টি দেয় না। | কিভাবে পরের জন্য, দীনদুঃখীর জন্য ত্যাগ করা যায় সেদিকে সে মনােযােগী হয়। ত্যাগের মাধ্যমে মানুষ দেশ ও জাতির কল্যাণ করে। এ ধরনের মহত্ত্বের তুলনা নেই। তাই মানুষের স্বার্থত্যাগের জন্য উদ্বুদ্ধ হওয়া উচিত।

Post a Comment

0 Comments Replies Comment