বাংলাদেশের বৃহত্তম শিক্ষামূলক কমিউনিটিতে আপনাকে স্বাগতম!

উচ্চ মাধ্যমিকের বাংলা ১ম পত্রের সকল কিছু (বাংলা ভার্সন ও ইংরেজি ভার্সন উভয়ের জন্য প্রযোজ্য)

উচ্চ মাধ্যমিকের সব চাইতে সহজ বিষয় বাংলাকে মনে হলেও সকলের জন্য কিন্তু এটা সমান ভাবে প্রযোজ্য নয় । কেউ কেউ তো মনে করে বাংলা? এইটা কি পড়তে হয় নাকি? পরীক্ষার আগের রাত এ পরলেই তো হয় ! ( By The Way, আমি নিজেও এমন ভাবতাম । কিন্তু, বাংলা কিন্তু আমার অনেক কঠিন লাগে! যদিও ঠিক ভাবে পড়া শোনা করলে এটা আহামরি কিছু না । কঠিন জিনিস বোঝা সব থেকে সহজ জানো? শুধু না বোঝা পর্যন্ত ধরে রাখবা । কোনো কঠিন বিষয় যেটা তোমার সহজে আয়ত্ত হচ্ছে না সেটি পড়ার জন্য ওই টাইম টা নির্ধারণ করো যখন তোমার ব্রেইন সর্বাধিক শান্ত থাকে । আমার ক্ষেত্রে এটি ভোর বেলা ফজর নামাজের পর থেকে, আর রাতে যখন খুব ঘুম পায় তখন! )

তুমি কি জানো উচ্চ মাধ্যমিকে গড়ে সব থেকে A+ মিস হয় বাংলাতে? তারপর ইংরেজিতে! আপাত দৃষ্টিতে সহজ মনে হলেও ঠিক মতো লেখা পড়া না করলে এগুলাই হতে পারে অনেক বড় একটা দূরস্বপ্ন ! সাবধান, একে তো এতো গুলো সৃজনশীল লিখে রিভাইস দেওয়ার সময়ই পাওয়া যায় না । অনেকে তো কমপ্লিলিটই করতে পারে না । অনেকে আবার শুরুতে বাংলা লিখতে লিখতে পরে জাপানিজ / চাইনিজ লিখে রাখে ! কিন্তু, বাংলা পরীক্ষাতে কি জাপানিজ/চাইনিজ লিখলে ভালো মার্কস পাওয়া যাবে?? তাই, এখন থেকেই সুন্দর ভাবে খুব দ্রুত লেখার চেষ্টা কর । যুদ্ধ করো নিজেকে প্রমান করে সর্বচ্চ অংশিদার হতে ।

আবার MCQ ও কিন্তু প্রায় বেশ জটিল মনে হয় । আন্দাজের কোনোই সুযোগ নেই । আন্দাজে কি ভবিষ্যত হয়? ওটা তো হয় কঠোর সাধনা, শ্রম ও প্রখর চিন্তাধারা ও বুদ্ধির মাধ্যমে । MCQ এর জন্য ঠিক ভাবে প্রস্তুতি না নিলে মনে হবে ৪টা অপশনই ঠিক! কোনটা ছেড়ে কোনটা দিতে হবে বুঝে উঠতে পারবে না । ঐদিকে সময় চলতে থাকবে ওর গতিতে । ৬০ সেকেন্ডস ও না, আসলে তুমি মোট সময় পাবে ৪০ সেকেন্ডস । স্যার আসবে, খাতায় সিগনেচার করবে, বৃত্ত ভরাট করবে ইত্যাদি ইত্যাদি । প্রশ্ন পড়া, বৃত্ত ভরাট, আর সিগনেচার এর সময় বাদে তুমি প্রশ্নগুলো ভাবার জন্য সময় পাবে ৪০ সেকেন্ডস ! সো, এখনি হয়ে যাও সতর্ক । নানা ধরণের জায়গা থেকে অধ্যায় ভালো ভাবে কমপ্লিট করার পর MCQ Practice করবে । 

৪০ সেকেন্ডে পুরো বই কে বিশ্লেষণ করে সেরা উত্তর টা দিতে পারবে । কখনো আন্দাজের ওপর নির্ভর করবে না । আর এখননি অনেক লিখো, লিখে লিখে হাতের লেখা দ্রুত করো । তারপর করবে সুন্দর লেখার চর্চা । বাংলা খাতায় বাংলা লিখতে হবে, চাইনিজ জাপানিজ লেখা যাবে না হা,হা !

তারপর আসি সৃজনশীল এর প্রসঙ্গে, যে জিনিসটা সব থেকে ভালো পারো সেটা সবার আগে । পারা জিনিস অনেক বড় হয়ে যায় লিখতে লিখতে । কিন্তু, সময় যে বাড়ে হয় না ! তাই, বেশী বড় না, যতটুকু দরকার তার বাহিরে না । স্যার তোমাকে ১০ এ এর বেশী দেওয়ার ক্ষমতা রাখে না । অবশ্যই সুন্দর হাতের লেখা দিয়ে শুরু করবে । প্রতিটা সৃজনশীল শেষ করবে ১৫ মিনিট এর মধ্যে । এক পেজে ১৮ লাইনের বেশী না । প্রয়োজনমত স্পেসিং করবে । মার্জিন টা পেন্সিল দিয়ে টানাতে আমি পছন্দ করি, তোমরা সাইনপেন বা কালার কলম ব্যবহার করতে পারো, এগুলো তো তোমরা জানো । তবে হ্যাঁ, লাল কলম দিয়ে কিছুই না । পরীক্ষার খাতায় কালো, নীল, সবুজ কলম ব্যবহার করতে পারবে । তবে কনটেন্ট লেখার সময় কালো আর টাইটেলিং এর সময় রঙ্গিন কলম ব্যবহার করবে । 

প্রশ্নপত্রে কলম বা পেন্সিল দিয়ে দাগাবে না, এক্সপেল করেও দিতে পারে । মনে রাখবা এটা জীবনের অনেক গুরুত্ব পূর্ণ একটা পরীক্ষা । এখন আসি খাওয়া দাওয়া এবং ড্রেসিং এর ব্যাপারে । খালি পেটে বা মধ্যম পেটে কার্যক্ষমতা সর্বাধিক থাকে । তাই, বাংলা পরীক্ষার দিন ভূলেও ভরা পেটে পরীক্ষা দিতে যেও না । দেখবে ঘুম ঘুম লাগবে আর অলস হয়ে যাবে । সর্বনাশ !! পরীক্ষা দিয়ে এসে ইচ্ছেমত খাবে । কলেজ ইউনিফর্ম না পড়তে হলে হালকা জামা কাপড় পড়ে যাবে । ভালো হয় সাদা বা কালো বা হালকা রঙ । শুনো, গাড় লাল বা কমলা এসব পড়া থেকে বিরত থাকো । এখন আমি এটা কেন বললাম সেটা ব্যাখ্যা করতে চাচ্ছি না । এতে তোমার মস্তিস্ক নার্ভাস হয়ে যেতে পারে । সবার ক্ষেত্রে হয় না, রিস্ক নিবে কেন? পরীক্ষার ১৫ মিনিট আগে অবশ্যই ক্লাসেই অবস্থান করবে, পরিবেশের সাথে মিলিয়ে যেতে তোমাকে সাহায্য করবে । অনেকেতো ঘুরে বেড়ায়, যেটা মোটেই উচিত না । 

পরীক্ষার খাতায় ঠিক ভাবে সেট কোড পূরন করবে । এটা কখনো যেন ভুলেও বাদ রেখো না । বিশেষ ক্ষেত্রে ফেল পর্যন্ত আসতে পারে । আর প্রশ্ন পাওয়ার পর লক্ষ্য করবে সাল ঠিক আছে কিনা । তুমি যদি ইরেগুলার হয়ে থাকো তাহলে ইরেগুলার এর জন্য় প্রযোজ্য প্রশ্ন অবশ্যই অবশ্যই নিতে হবে । ভূলেও অন্য প্রশ্ন দিয়ে পরীক্ষা দিবে না । কারণ, এটা কিন্তু OMR মেশিন দিয়ে দেখা হয়, আর তোমারটাও দেখা হবে অনিয়মিত বা ইরেগুলার এর উত্তরমালা দিয়েই । যদি শিক্ষক নার্ভাস থাকেন বা প্রশ্ন না দিতে চান, তাহলে ক্লাস থেকে বের হয়ে মূল শিক্ষকদের কক্ষে বা প্রধান পরীক্ষা পরিচালক এর কাছে দ্রুত যাবে । যেয়ে বিষয়টি জানাবে । সব দ্রুত করবে, কারণ ওইদিকে তোমার সময় চলে যাচ্ছে । 

লেখা আর বড় করতে ইচ্ছে করছে না । এতো টুকুই থাকুক, ভালো থাকো - ভালো ভাবে পরীক্ষা দাও, সবাই কে ভালো রাখো আর সুস্থ থাকো । - মাসুদ


বাংলা ১ম পত্র এর সকল কিছু (HSC)



  • বাংলা ১ম পত্রের মানবন্টন
  • বাংলা ১ম পত্রের সাজেশন 
  • বাংলা ১ম পত্রের টিপস ও ট্রিকস
  • বাংলা ১ম পত্রের বিগত বছরের বোর্ড কোরশেন
  • বাংলা ১ম পত্রের সৃজনশীল মডেল কোরশেন
  • বাংলা ১ম পত্রের নৈঃবৃত্তিক মডেল কোরশেন
  • বাংলা ১ম পত্রের অনলাইন এক্সাম
  • বাংলা ১ম পত্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য